You are currently viewing বাংলা সাহিত্যের মধ্যযুগ
বাংলা সাহিত্যের মধ্যযুগ

বাংলা সাহিত্যের মধ্যযুগ

১২০১ থেকে ১৮০০ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত সময়কালকে বাংলা সাহিত্যের মধ্যযুগ হিসেবে ধরা হয়। ১২০৪ সালে ইখতিয়ার উদ্দীন মুহম্মদ বখতিয়ার খলজি কতৃক নদীয়া বিজয়ের মাধ্যমে বাংলায় মুসলিম শাসনের গোড়াপত্তন হয়। বাংলা সাহিত্যের মধ্যযুগ ছিল ধর্মকেন্দ্রিক।অর্থাৎ ধর্মীয় আবেশে মধ্যযুগে সাহিত্য রচনা হত।

Advertisement

বাংলা সাহিত্যের মধ্যযুগের কিছু তথ্যঃ

  • ব্যাপ্তিকালঃ ১২০১ – ১৮০০ খ্রিস্টাব্দ । 
  • প্রধান নিদর্শনঃ  শ্রীকৃষ্ণকীর্তন 
  • কাব্যের প্রধান গুণঃ   ধর্ম নির্ভরতা
  • প্রধান কবিঃ দৌলত কাজী, আলাওল , 
  • মধ্যযুগের শেষকবিঃ  ভারতচন্দ্র রায়গুণাকর

এই যুগে বাংলা সাহিত্যের জন্য কিছু অনবদ্য সৃষ্টি রয়েছে যা বাংলা সাহিত্য কে করেছে সমৃদ্ধময় মধ্যযুগ আবার তিন ভাগে বিভক্ত।

  • অন্ধকার যুগ/আদি-মধ্যযুগ (১২০০-১৩৫০), 
  • মধ্য-মধ্যযুগ (১৩৫০-১৭০০) ও 
  • অন্ত্য-মধ্যযুগ (১৭০০-১৮০০)

মুধ্যযুগের ১২০১-১৩৫০ সাল পর্যন্ত সময়কে ভাষাবিজ্ঞানীরা অন্ধকার হিসেবে চিহ্নিত করেছেন।কারন এ যুগে রামাই “পণ্ডিত কতৃক” ‘শূন্যপুরাণ’ এবং হলায়ুধ মিশ্র কতৃক “সেক শুভোদয়া” ছাড়া তেমন কোন প্রধান সাহিত্য রচিত হয় নি। অন্ধকার যুগ পরবর্তী মধ্যযুগের সাহিত্য কর্ম গুলোকে ভাষাবিদেরা দুটি ভাগে ভাগ করেছেন।তা হল-

১) মৌলিক সাহিত্যঃ

মৌলিক সাহিত্যগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য সাহিত্যকর্ম হচ্ছে  শ্রীকৃষ্ণ কীর্তন,বৈষ্ণব পদাবলী,মঙ্গল কাব্য।

২) অনুবাদ সাহিত্যঃ

উল্লেখযোগ্য সাহিত্যকর্ম হচ্ছে রামায়ণ, মহাভারত, ভগবত ইত্যাদি।

মধ্যযুগের বাংলা সাহিত্যর প্রধান দুটি শাখা হল — ১.কাহিনীমূলক ও ২.গীতিমূলক।

মধ্যযুগের উল্লেখযোগ্য সাহিত্যিক ও সাহিত্যকর্মঃ

১। বড়ু চন্ডীদাস
  • বড়ু চন্ডীদাসের রচিত গ্রন্থ – শ্রীকৃষ্ণকীর্তন 
  • বৈষ্ণব পদাবলীর আদি রচয়িতা ও মধ্যযুগের আদি কবি  – বড়ু  চন্ডীদাস
  • এর প্রকৃত নাম – অনন্ত 
২। চন্ডীদাস 
  • চন্ডীদাস – বৈষ্ণব কবি 
  • বাংলা ভাষার প্রথম মানবতাবাদী কবি –  চন্ডীদাস

শুনহ  মানুষ ভাই / সবার উপর মানুষ সত্য তাহার উপর নাই

– চন্ডীদাস
৩। বিদ্যাপতি 
  • মিথিলার কবি বিদ্যাপতি ছিলেন – বৈষ্ণব কবি 
  • বিদ্যাপতির শ্রেষ্ঠ রচনা –  রাধাকৃষ্ণ বিষয়ক পদ
  • বিদ্যাপতি ব্রজবুলি ভাষায় পদ রচনা করতেন।
৪। শাহ মুহাম্মদ সগীরঃ
  • বাংলা সাহিত্য ও মধ্যযুগের প্রথম মুসলমান কবি তিনি
  • বাংলা সাহিত্যের প্রথম রোমান্টিক প্রণয়োপাখ্যান- ইউসুফ জুলেখা 
  • ইউসুফ জুলেখা কাব্যের উৎস বাইবেল ও কুরআন।
৫। দৌলত উজির বাহরাম খানঃ
  • দৌলত উজির বাহরাম খান জন্মগ্রহণ করেন – ফতেহাবাদ চট্টগ্রাম
  • তার উপাধি- দৌলত উজির 
  • তার লেখা কাব্য- জঙ্গনামা,  লাইলি-মজনু 
  • লাইলী মজনু কাব্যের মূল উৎস আরবি লোককথা.  
৬। মুকুন্দরাম চক্রবর্তীঃ
  • মুকুন্দরাম চক্রবর্তীর নাম তিনি রচনা করেন – শ্রীশ্রী চণ্ডীমঙ্গলা 
  • চন্দ্রাবতী চন্দ্রাবতী ছিলেন রামায়ণ অনুবাদক এবং প্রথম মহিলা কবি 
  • তাঁর পিতা ছিলেন মনসামঙ্গল কাব্যের রচয়িতা দ্বিজ বংশীদাস.
৭। আলাওলঃ
  • মধ্যযুগের মুসলমান কবিদের মধ্যে শ্রেষ্ঠ কবি – আলাওল
  • আলাওয়াল প্রথম শ্রেষ্ঠ কাব্য পদ্মাবতী 
  • সয়ফুলমুলুক বদিউজ্জামাল’ রচনা করেন আলাওল
  • এছাড়াও তিনি রচনা করেন  সপ্তপয়কর, তোহফা, সিকান্দারনামা ইত্যাদি 
৮। শাহ মোহাম্মদ গরীবুল্লাহঃ
  • পুঁথি সাহিত্যের প্রথম সার্থক ও জনপ্রিয় কবি শাহ গরীবুল্লাহ 
  • তার কবি প্রতিভার শ্রেষ্ঠ প্রকাশ ইউসুফ জুলেখা
৯। ভারতচন্দ্র রায়গুণাকরঃ
  • মধ্যযুগের শেষ কবি – ভারতচন্দ্র রায়গুণাকর 
  • কবি প্রতিভার শ্রেষ্ঠ নিদর্শন অন্নদামঙ্গল 
  • তিনি কৃষ্ণনগর রাজসভার কবি ছিলেন 
  • বাংলা সাহিত্যের অমর সৃষ্টি ঈশ্বরী পাটনী শ্রেষ্ঠা ভারতচন্দ্র রায়গুণাকর 
  • আমার সন্তান যেন থাকে দুধে-ভাতে প্রার্থনা করেছিল ঈশ্বরী পাটনী
  • অষ্টাদশ শতকের শ্রেষ্ট কবি এবং মধ্যযুগের অন্যতম শ্রেষ্ঠ কবি হিসেবে  সুপরিচিত ভারতচন্দ্র রায় গুনাকর। 
  • অন্নদামঙ্গল কাব্যগ্রন্থের রচয়িতা ভারতচন্দ্র রায় গুনাকর। 
  • ভারতচন্দ্র ‘রায় গুণাকর’ উপাধি প্রদান করেন নবদ্বীপের রাজা কৃষ্ণচন্দ্র।
  •  ভারতচন্দ্র সভাকবি ছিলেন নবদ্বীপের রাজা কৃষ্ণচন্দ্র।
  • ভারতচন্দ্রের রায় রচিত মঙ্গল কাব্যর নাম অন্নদামঙ্গল কাব্য।
  • ভারতচন্দ্র রায় গুণাকরের জন্মস্থান হাওড়া জেলার পেঁড়ো (পান্তুয়া) গ্রামে।
  • কবি ভারত চন্দ্র রায় গুনাকর জীবানাবসানের মাধ্যমে মধ্যযুগের অবসান হয়েছে।
আরো জেনে রাখুন
  • মধ্যযুগে বাংলা সাহিত্যের মুসলমান কবিগণের সর্বাপেক্ষা উল্লেখ্যযোগ্য অবদান রোমান্টিক প্রণয়োপাখ্যান।
  • মধ্যযুগে হিন্দী ভাষা থেকে অনুদিত প্রণয়োপাখ্যানগুলো হল পদ্মাবতী, সতী ময়না লোরচন্দ্রনী, মধুমালতী, মৃগাবতী ইত্যাদি।
  • গুলে বকাওয়ালী’ রচনা করেন নওয়াজিশ আলী খান।
  • সপ্তপয়কর পারস্যর কবি নিজামী গঞ্জভীর সপ্তপয়কর রচনার ভাবানুবাদ।
  • ‘ইউসুফ-জুলেখা’ আরো রচনা করেন – আব্দুল হাকিম, গরীবুল্লাহ, গোলাম সাফাতউল্লাহ, সাদেক আলী ও ফকির মুহাম্মদ
  • মর্সিয়া সাহিত্য এক ধরনের শোককাব্য। বাংলা সাহিত্যে মর্সিয়া সাহিত্য ধারার প্রথম কবি শেখ ফয়জুল্লাহ এবং তাঁর কাব্যের নাম জয়নবের চৌতিশা।

Leave a Reply