You are currently viewing জাতীয় শোক দিবস
জাতীয় শোক দিবস

জাতীয় শোক দিবস

১৫ আগস্ট ১৯৭৫  বাংলাদেশের ইতিহাসে একটি কলঙ্কজনক দিন যা জাতীয় শোক দিবস হিসাবে পালিত হয়। এই দিনে ঘাতকরা জাতির পিতা এবং পরিবারের পাঁচ সদস্যকে নির্মমভাবে হত্যা করে। হত্যাকারীর বুলেট এমনকি শিশু রাসেলকেও বাঁচতে দেয়নি। হত্যাকারীরা যারা হত্যাকাণ্ডের বর্বর দলে পড়েছিল তারা ছিল কিছু বিদ্রোহী সেনা কর্মী। সামরিক ও বেসামরিক ষড়যন্ত্রকারীরা ছিল পর্দার আড়ালে। তারা ছিল ১৫ আগস্ট নৃশংস হত্যাকাণ্ডের সুবিধাভোগী।

Advertisement

অনেক বিদেশী ও দেশীয় শুভাকাঙ্ক্ষী বঙ্গবন্ধুকে এ ব্যাপারে সতর্ক করেছিলেন। তারা বলেছিল যে রাষ্ট্রপতির পক্ষে এইরকম অরক্ষিত বাসভবনে থাকা মোটেও নিরাপদ নয়। কিন্তু তিনি ব্যক্তিগত নিরাপত্তা নিয়ে মোটেও চিন্তিত ছিলেন না। তিনি দৃঢ় বিশ্বাসে বলতেন, ‘আমাকে হত্যা করবে এমন কোন বাঙালি নেই’।

১৫ আগস্ট তখনও ভোর হতে অনেক দেরি ঢাকা তার দিন শুরু করতে চলেছে। জাতির পিতা তখনও ধানমন্ডির ৩২ নম্বর রোডের  ১০ নম্বর বাড়িতে পরিবারের সঙ্গে ঘুমাচ্ছিলেন।

ঘাতকরা ট্যাংক, কামান এবং মেশিনগানসহ অতি-আধুনিক অস্ত্র নিয়ে রাস্তায় নেমে আসে। তাদের টার্গেট ছিল বঙ্গবন্ধু, তার পরিবার এবং তার আত্মীয়দের হত্যা করা। ভোর ৫.৩০ টার দিকে তারা বঙ্গবন্ধুর বাসভবনে আক্রমণ শুরু করে। খুনিরা মেজর মহিউদ্দিন, মেজর হুদা, মেজর পাশা এবং মেজর নূরের নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর বাড়ি ঘেরাও করে।

খুনিরা জোর করে বঙ্গবন্ধুর বাড়িতে প্রবেশ করে। তারপর দিনের আলো উজ্জ্বল হয়ে উঠল। গোলাগুলির শব্দে ধানমন্ডি এলাকার বাসিন্দারা আতঙ্কিত হয়ে পড়েছিলেন। নীলনকশা অনুযায়ী, খুনিরা জাতির পিতার পরিবারকে আক্রমণ করে।

চিৎকার, বিশৃঙ্খলা এবং গুলির শব্দে বঙ্গবন্ধুর পরিবার জেগে ওঠে। ঘাতকরা একের পর এক পরিবারের সকল সদস্যকে হত্যা করে। এমনকি শিশু রাসেলকেও ছাড় দেওয়া হয়নি। হত্যাকারীদের মধ্যে একজন রাসেলকে নিচে টেনে নিয়ে গেল। আট বছর বয়সী রাসেল একেবারে সন্ত্রস্ত হয়ে পড়ে এবং তার মায়ের জন্য কান্না শুরু করে। নির্মম খুনি তাকে আবার উপরে নিয়ে গিয়ে গুলি করে হত্যা করে। হত্যাকারীরা স্টিনগান দিয়ে বঙ্গবন্ধুর বুকে গুলি করে। তার বুকে ১৮ টি গুলির ক্ষত পাওয়া গেছে। তারা বঙ্গবন্ধুর স্ত্রী বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব, তার ছেলে শেখ কামাল, শেখ জামাল, নাবালক শিশু শেখ রাসেলকে হত্যা করে।

পুত্রবধূ সুলতানা কামাল ও রোজি জামাল, ভাই শেখ নাসের, কৃষক নেতা আব্দুর রব সেমিয়াবাত, যুব নেতা শেখ ফজলুল হক মনি এবং তার গর্ভবতী স্ত্রী আরজু মনি, বেবি সেমিয়াবাত, সুকান্ত বাবু, আরিফ এবং আব্দুল নাইমসহ পরিবারের ১৮ জন সদস্য নিহত হন। বঙ্গবন্ধুর দুই মেয়ে শেখ হাসিনা এবং শেখ রেহানা সে সময় বিদেশে থাকায় বেঁচে যান।

মাত্র সাড়ে তিন বছরের শাসনে বঙ্গবন্ধু সদ্য মুক্ত দেশ, বাংলাদেশের জন্য অগ্রগতির ভিত্তি স্থাপন করতে সফল হন। বাংলাদেশের স্থপতি হওয়া সত্ত্বেও, দেশের সেরা-প্রিয় নেতাকে এই অমানবিক উপায়ে শেষ পর্যন্ত যেতে হয়েছিল।

সভ্যতার ইতিহাসে এরকম করুণ, নৃশংস এবং হৃদয়বিদারক হত্যার উদাহরণ রয়েছে। সামরিক ও বেসামরিক রাজনীতিকদের সঙ্গে দেশি -বিদেশি ষড়যন্ত্রকারীরা বঙ্গবন্ধুর হত্যার চক্রান্তে জড়িত ছিল। খন্দকার মোশতাক আহমদ ছিলেন হত্যাকারীদের বলয় নেতা। বঙ্গবন্ধুর হত্যার কারণে আমরা বিশ্বের চোখে এক অকৃতজ্ঞ জাতিতে পরিণত হয়েছি। দখলদাররা ইতিহাস থেকে বঙ্গবন্ধু এবং তাঁর অর্জনকে মুছে ফেলার চেষ্টা করেছিল। কিন্তু তাদের প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়েছে কারণ বাংলাদেশের ইতিহাস রচনায় বঙ্গবন্ধুর ভূমিকা উপেক্ষা করে লেখা যায় না।

নিম্নলিখিত লাইনগুলিতে একই কথা বলেছেন:

 ‘যতকাল রবে পদ্মা যমুনা
গৌরী মেঘনা বহমান
ততকাল রবে কীর্তি তোমার
শেখ মুজিবুর রহমান।
দিকে দিকে আজ অশ্রুগঙ্গা
রক্তগঙ্গা বহমান
তবু নাই ভয় হবে হবে জয়
জয় মুজিবর রহমান। ,

কবি অন্নদাশঙ্কর রায়

জাতীয় শোক দিবস কিভাবে পালন করা হয়?

যদি আপনি জাতীয় শোক দিবসে বাংলাদেশে থাকেন, তাহলে অবাক হবেন না যদি আপনি লক্ষ্য করেন যে সরকারী, সাংগঠনিক, শিক্ষাগত এবং অন্যান্য ভবনে অর্ধনমিত পতাকা পতিত হয়েছে। আওয়ামী লীগ ১৫ ই আগস্ট সকালে তাদের সকল দলীয় কার্যালয়ে কালো পতাকা উত্তোলন করে, সেই সময় নির্মম হত্যাকাণ্ডের সন্ধান পাওয়া যায়। আওয়ামী লীগ এবং অন্যান্যরা মসজিদ, গীর্জা এবং প্যাগোডায় বিশেষ প্রার্থনা সভা করবে। পুরো দিনটি একটি বড় গৌরবময় এবং “জাতির পিতা” সম্মান এবং সম্মান দেওয়া হয়।

১।  এই দিনে, প্রধানমন্ত্রী এবং বাংলাদেশের সম্মানিত রাষ্ট্রপতি জাতির পিতার কবরস্থানে শ্রদ্ধা জানান ।

২। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী এবং রাষ্ট্রপতি শেখ মুজিবুর রহমানের জীবন ও কর্মকান্ডকে কেন্দ্র করে জনগণের উদ্দেশ্যে একটি বিশেষ ভাষণ প্রদান করেন।

৩। সকল রাজনৈতিক দল বিশেষ করে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ বঙ্গবন্ধুর জীবন ও তার কার্যক্রম সম্পর্কে জনগণকে জানার জন্য বিভিন্ন কর্মসূচির ব্যবস্থা করে ।

৪। বিভিন্ন টেলিভিশন চ্যানেলের পাশাপাশি জাতীয় টিভি চ্যানেল বিটিভি জাতির পিতাকে উৎসর্গ করার জন্য বিশেষ অনুষ্ঠান রাখবে।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের এই লাল অক্ষরের দিনটি বাংলাদেশের মানুষ কখনো ভুলবে না। বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশের মানুষের উত্তাপে অমর হয়ে থাকবেন।

Leave a Reply