You are currently viewing আন্তর্জাতিক নারী দিবস
আন্তর্জাতিক নারী দিবস

আন্তর্জাতিক নারী দিবস

আন্তর্জাতিক নারী দিবস টি উৎযাপনের পেছনে রয়েছে নারী শ্রমিকের অধিকার আদায়ের সংগ্রামের ইতিহাস। যা নারীর সমঅধিকার ও নারী নির্যাতন বিরুদ্ধে সচেতন করেছে বিশ্বের সকল নারীকে।

Advertisement

১৮৫৭ খ্রিস্টাব্দে মজুরি বৈষম্য, কর্মঘণ্টা নির্দিষ্ট করা, কাজের অমানবিক পরিবেশের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কের রাস্তায় নেমেছিলেন পোশাক/সুতা কারখানার নারী শ্রমিকেরা। সেই মিছিলে চলে সরকার লেঠেল বাহিনীর দমন-পীড়ন।

১৯০৯ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি নিউইয়র্কের সোশ্যাল ডেমোক্র্যাট নারী সংগঠনের পক্ষ থেকে আয়োজিত নারী সমাবেশে জার্মান সমাজতান্ত্রিক নেত্রী ক্লারা জেটকিনের নেতৃত্বে সর্বপ্রথম আন্তর্জাতিক নারী সম্মেলন হলো।

ক্লারা ছিলেন জার্মান রাজনীতিবিদ; জার্মান কমিউনিস্ট পার্টির স্থপতিদের একজন।

এরপর ১৯১০ খ্রিস্টাব্দে ডেনমার্কের কোপেনহেগেনে অনুষ্ঠিত হয় দ্বিতীয় আন্তর্জাতিক নারী সম্মেলন। ১৭টি দেশ থেকে ১০০ জন নারী প্রতিনিধি এতে যোগ দিয়েছিলেন। এ সম্মেলনে ক্লারা প্রতি বৎসর ৮ মার্চকে আন্তর্জাতিক নারী দিবস হিসেবে পালন করার প্রস্তাব দেন।

সিদ্ধান্ত হয়ঃ

১৯১১ খ্রিস্টাব্দ থেকে নারীদের সম-অধিকার দিবস হিসেবে দিনটি পালিত হবে।

দিবসটি পালনে এগিয়ে আসে বিভিন্ন দেশের সমাজতন্ত্রীরা। ১৯১৪ খ্রিস্টাব্দ থেকে বেশ কয়েকটি দেশে ৮ মার্চ পালিত হতে লাগল।

বাংলাদেশে আন্তর্জাতিক নারী দিবসঃ

বাংলাদেশেও ১৯৭১ খ্রিস্টাব্দে স্বাধীনতার লাভের পূর্ব থেকেই এই দিবসটি পালিত হতে শুরু করে। অতঃপর ১৯৭৫ খ্রিস্টাব্দ থেকে ৮ মার্চকে আন্তর্জাতিক নারী দিবস জাতিসংঘের নিয়ম অনুসারে পালিত হয়।

জাতিসংঘ আন্তর্জাতিক নারী দিবসটি পালনের জন্য বিভিন্ন রাষ্ট্রকে আহ্বান জানায়। এরপর থেকে সারা পৃথিবী জুড়েই পালিত হচ্ছে। দিবস টি নারীর অধিকার আদায়ের প্রত্যয় নিয়ে প্রতি বছর ৮ মার্চ পালিত হচ্ছে। সারা বিশ্বের সকল দেশে যথাযথ মর্যাদায় পালিত হয় আন্তর্জাতিক নারী দিবস।

এই আন্তর্জাতিক নারী দিবস বিভিন্ন বছরে বিভিন্ন প্রতিপাদ্য নিয়ে সারা বিশ্ব ব্যাপী পালিত হয় ।

বছরজাতিসংঘের প্রতিপাদ্য
১৯৯৬অতীত উদযাপন এবং ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা
১৯৯৭নারী এবং শান্তি
১৯৯৮নারী এবং মানবাধিকার
১৯৯৯নারী প্রতি সহিংসতামুক্ত পৃথিবী
২০০০শান্তি স্থাপনে একতাবদ্ধ নারী
২০০১নারী ও শান্তি : সংঘাতের সময় নারীর অবস্থান
২০০২আফগানিস্তানের নারীদের বাস্তব অবস্থা ও ভবিষ্যৎ
২০০৩লিঙ্গ সমতা ও সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা
২০০৪নারী এবং এইহ আই ভি/ এইডস
২০০৫লিঙ্গ সমতার মাধ্যমে নিরাপদ ভবিষ্যত
২০০৬সিদ্ধান্ত গ্রহণে নারী
২০০৭নারী ও নারী শিশুর ওপর সহিংসতার দায়মুক্তির সমাপ্তি
২০০৮নারী ও কিশোরীদের ক্ষেত্রে বিনিয়োগ
২০০৯নারী ও কিশোরীর প্রতি সহিংসতা বন্ধে নারী-পুরুষের একতা
২০১০সমান অধিকার, সমান সুযোগ- সকলের অগ্রগতি
২০১১শিক্ষা, প্রশিক্ষণ, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ক্ষেত্রে নারীর সমান অংশগ্রহণ
২০১২গ্রামীণ নারীদের ক্ষমতায়ন- ক্ষুধা ও দারিদ্র্যের সমাপ্তি
২০১৩নারীর প্রতি সহিংসতা বন্ধে পদক্ষেপ নেওয়ার এখনই সময়
২০১৪নারীর সমান অধিকার সকলের অগ্রগতির নিশ্চয়তা
২০১৫নারীর ক্ষমতায়ন ও মাবতার উন্নয়ন
২০১৬অধিকার মর্যাদায় নারী-পুরুষ সমানে সমান
২০১৭নারী-পুরুষ সমতায় উন্নয়নের যাত্রা, বদলে যাবে বিশ্ব কর্মে নতুন মাত্রা।
২০১৮সময় এখন নারীর: উন্নয়নে তারা, বদলে যাচ্ছে গ্রাম-শহরের কর্ম-জীবনধারা
২০১৯সবাই মিলে ভাবো, নতুন কিছু করো নারী-পুরুষ সমতার নতুন বিশ্ব গড়ো
২০২০প্রজন্ম হোক সমতার, সকল নারী অধিকার
২০২১করোনাকালে নারী নেতৃত্ব গড়বে নতুন সমতার বিশ্ব

তথ্যসূত্রঃ

This Post Has 3 Comments

  1. Jannat

    Nice

Leave a Reply